অনলাইন কোর্স নাকি অনসাইট (অফলাইন) কোর্সঃ সুবিধা এবং অসুবিধা

Offline vs Online Course

ফিউচার ইস ফর লার্নার্স। কম্পেটিটিভ এই যুগে স্কীল ডেভেলপ করার কোন বিকল্প নেই, এবং এটি একটি কন্টিনিউয়াস প্রসেস। প্রতিনিয়তই আমাদেরকে নিজেদের দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য কাজ করত হবে। এটি আপনার জন্যও যেমন সত্য, আমার জন্যও তাই। আমার অফিসে বসে যারা কাজ করছে তাদের জন্যও তাই।

দক্ষতা বাড়ানোর জন্য আমরা প্রায়ই বিভিন্ন রকমের কোর্স করে থাকি। আর এই কোর্স গুলো আমাদের বিভিন্ন ভাবে সহায়তা করে থাকে।

অনলাইনের এই যুগে ধীরে ধীরে অনলাইন কোর্সের সংখ্যা বাড়ছে। তাই অনেক সময় একটু কনফিউশন লাগে, কোন ধরনের কোর্স আমার করা প্রয়োজন।

আবার একজন মেন্টর হিসেবে আমি অনসাইট ক্লাস যেমন নিয়েছি, তেমনি অনলাইন কোর্স নিয়েও কাজ করেছি। তাই দুইটার সুবিধা অসুবিধা কাছ থেকে দেখার সুযোগ হয়েছে। আর এ কারনেই আজকের এই পোস্ট লিখা।

প্রথমেই শুরু করছি ট্রেডিশনাল অনসাইট কোর্স দিয়েঃ (যেটাকে আবার অফলাইন কোর্স ও বলা যেতে পারে)

অসুবিধাঃ

  • ট্রাফিক জ্যাম
  • একটি নির্দিষ্ট সময় মেইন্টেন্ট করতে হয়, যা অনেক সময় কষ্টকর হয়ে যায়।
  • নিজের সুবিধা মত সময়ে ক্লাস করার সুযোগ নেই, ক্লাসের সময় মত নিজেকে রেডি রাখতে হয়।
  • একটি ক্লাস শেষ হয়ে গেলে ওটা আর রিপিট করার সুযোগ নেই
  • একটি ক্লাস মিস হয়ে গেলে অনেক সময় পরের ক্লাস গুলো বুঝতে সমস্যা হয়। সেই ক্লাসটার আর বেকআপ পাওয়া যায় না।

সুবিধাঃ

  • মেন্টরকে সামনা সামনি পাওয়া যায়, যেটাতে একটা বেটার ফীল কাজ করে।
  • কনফিউশন থাকলে ইন্সটেন্ট প্রশ্ন করা যায় এবং উত্তর পাওয়া যায়।
  • যেহেতু ক্লাসে আরো স্টুডেন্ট থাকে, তাই একটা নেটওয়ার্কিং অপরচুনিটি থাকে।
  • টিম ওয়ার্ক করার সুযোগ থাকে।
  • ক্লাস ওয়ার্ক অনেক সময় ক্লাসকে আরো বেশি ইফেক্টিফ করে তোলে।
  • মেন্টর অনেক সময় বাড়ির কাজ/ক্লাস ওয়ার্ক না করলে বকা ঝকা দেয়, যা অনেক সময় শিখতে সহায়তা করে।

অনলাইন কোর্সঃ

অনলাইন কোর্স আবার দুই রকমের হয়, একটি লাইভ, আরেকটি প্রি রেকর্ডেড।

লাইভ ক্লাসের ক্ষেত্রে

অসুবিধাঃ

  • একটি নির্দিষ্ট সময় মেইন্টেন্ট করতে হয়, যা অনেক সময় কষ্টকর হয়ে যায়।
  • নিজের সুবিধা মত সময়ে ক্লাস করার সুযোগ নেই, ক্লাসের সময় মত নিজেকে রেডি রাখতে হয়।
  • একটি ক্লাস শেষ হয়ে গেলে ওটা আর রিপিট করার সুযোগ নেই
  • একটি ক্লাস মিস হয়ে গেলে অনেক সময় পরের ক্লাস গুলো বুঝতে সমস্যা হয়। সেই ক্লাসটার আর বেকআপ পাওয়া যায় না।
  • ইন্টারনেট কানেকশন ইস্যু থাকলে ক্লাস মিস করতে হয়।

সুবিধাঃ

  • মেন্টরকে অনলাইনে ক্লাসের সময় পাওয়া যায়, যেটাতে একটা বেটার ফীল কাজ করে।
  • কনফিউশন থাকলে ইন্সটেন্ট প্রশ্ন করা যায় এবং উত্তর পাওয়া যায়।
  • নিজের বাসায় বসেই ক্লাস করতে পারছি।

প্রি রেকর্ডেড কোর্সের ক্ষেত্রেঃ

অসুবিধাঃ

  • মেন্টরকে সামনা সামনি পাওয়া যায় না
  • ইন্সটেন্ট প্রশ্ন করা যায় না।
  • অন্য কারো সাথে অনসাইট ট্রেইনিং এর মত করে কানেক্ট হওয়া যায় না।

সুবিধাঃ

  • নিজের সুবিধা মত সময়ে লার্নিং ম্যাটেরিয়াল গুলো দেখা যায়।
  • ভাল ভাবে বুঝার জন্য বার বার দেখা যায়।
  • চাইলেই যে কোন সময় পুরানো ম্যাটেরিয়াল গুলো দেখে নেয়া যায়।
  • ইন্টারনেট কানেক্টিভিটি ইস্যু থাকলেও পরে সেই কন্টেন্ট দেখে নেয়া যায়।
  • ক্লাসের টাইমের সাথে নিজেকে এডজাস্ট না করে, নিজের টাইমের সাথে লার্নিংকে এডজাস্ট করে নেয়া যায়।
  • পৃথিবীর যে কোন প্রান্ত থেকেই কোর্স করা যায়।

তারমানে প্রতিটারই কিছু সুবিধা এবং অসুবিধা আছে। অনলাইন কোর্সের সবচাইতে বড় সুবিধা হচ্ছে এতে সময় বাচানো যায়, যে সময়টাতে প্রাকটিস করলে অনেক দূর এগিয়ে যাওয়া সম্ভব। এছাড়াও মেটেরিয়াল নিজের কাছেই যেহেতু থাকে, তাই একাধিক বার দেখা যায়। যখনই কনফিউশন থাকছে দেখে নেয়া যাচ্ছে। আমার নিজেকে আজকে অনেক বেশি প্রোডাক্টিভ মনে হচ্ছে, আজকে চাইলে একটু বেশি লেসন কাভার করে নেয়া যায়। আবার আজকে একটু টায়ার্ড লাগছে, আজকের টায়ার্ড মাথায় আর প্রেসার না দিলেও চলছে।

আপনারা যদি ডিজিটাল মার্কেটিং সেক্টরে ক্যারিয়ার গড়তে ইচ্ছ্যুক হয়ে থাকেন তাহলে আমাদের এই কোর্সটি ট্রাই করতে পারেন। কোন কনফিউশন থাকলে আমাদের ফেসবুক পেজ এ প্রশ্ন করতে পারেন।

Comments

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here