বাংলাদেশের অনলাইন পেমেন্ট গেটওয়ে সার্ভিস

যেকোন ব্যবসার সবচাইতে গুরুত্বপুর্ন অংশ গুলার একটি হচ্ছে পেমেন্ট কালেকশন। ঠিক মত পেমেন্ট না নিতে পারলে অনেক সময় পুরো ব্যবসা আটকে যায়। মনে রাখতে হবে, ব্যবসার সব কিছুই আসলে কম বেশি পেমেন্টের সাথে জড়িত।

তাই বিজনেসের অন্যান্য প্লান গুলার মতো আমাদের পেমেন্ট গেটওয়ে নিয়ে ভাবতে হবে।
একটা সময় ছিল যখন সব লেনদেন হত হাতে হাতে অথবা ব্যাংক চেক আদান প্রদান এর মাধ্যমে।

এই দুটি মাধ্যম এখনো অনেক প্রচলিত এবং জনপ্রিয়। তবে ডিজিটাইজেশনের যুগে এটি পরিবর্তন হচ্ছে। চেক এর লেনদেন কমে গিয়ে অনলাইন ফান্ড ট্রান্সফার এর জনপ্রিয়তা বাড়ছে।

আর ছোট ছোট লেনদেনের ক্ষেত্রে ক্যাশ ট্রান্সেকশনের যায়গা নিচ্ছে, বিকাশ, রকেট এর মতো মোবাইল ব্যাংকিং সুবিধা গুলো। এছাড়াও রয়েছে ক্রেডিট এবং ডেবিট কার্ড দিয়ে পেমেন্ট করার ফ্যাসিলিটি।

একজন ব্যবসায়ী হিসেবে আমাদের মনে রাখতে হবে, ক্রেতার লাইফ যত সহজ করা যাবে, বিক্রি বাড়ার সম্ভাবনাও তত বাড়বে। এটা শুধু প্রোডাক্ট ডেভেলপমেন্ট কেন্দ্রিক না। সর্বোপরি ক্লায়েন্টের অভিজ্ঞতা নিয়ে ভাবতে হবে।

এই পোস্টে আমি আপনাদেরকে পেমেন্ট গেটওয়ে নিয়ে একটি পরিপুর্ন গাইডলাইন দেয়ার চেষ্টা করবো।

বাংলাদেশ মার্কেটের জন্য পেমেন্ট গেটওয়েঃ

পেমেন্ট গেটওয়ে এর সুবিধার কথা চিন্তা করলে আমরা এখনো উন্নত দেশ গুলোর থেকে অনেক পিছিয়ে আছি। তারপরেও আমাদের হাতে বেশ কিছু অপশন রয়েছে যা আমাদেরকে এগিয়ে যেতে সহায়তা করবে। বাংলাদেশ এ বেশ কিছু পেমেন্ট গেটওয়ে রয়েছে। তার মধ্যে নিচের পেমেন্ট গেটওয়ে গুলো বেশি পরিচিত

• SSLCOMMERZ
• AamarPay
• ShurjaPay
• Easy Pay Way

প্রতিটা পেমেন্ট গেটওয়ের বিস্তারিত আপনি তাঁদের ওয়েবসাইট এ পাবেন।

বাংলাদেশের পেমেন্ট গেটওয়ে গুলো কিভাবে চার্জ করেঃ

পেমেন্টগেটওয়ে গুলা মূলত ২ ভাবে আপনাকে চার্জ করবে।

১) একটি ফিক্সড সেটআপ ফী। যেটা মূলত আপনি যখন সেটআপ করবেন তখন দিতে হবে। অনেক সময় আপনার বিজনেস অপরচুনিটি বড় হলে এই ফী মৌকুফ করে দিয়ে থাকে। আবার অনেক সময় ডিস্কাউন্ট প্রাইজ পাওয়া যায়।

২) একটি পার্সেন্টেইজ, যা আপনাকে প্রতি ট্রান্সেকশনে দিতে হবে। আপনার ক্লায়েন্ট যখন যখন আপনাকে পেমেন্ট করবে, গেটওয়ে একটি পার্সেন্টেজ কেটে রাখবে তাঁদের ফী বাবদ।

ফী আবার ক্লায়েন্ট কোন মেথড দিয়ে পেমেন্ট করছে তার উপড়ে নির্ভর করবে। বিকাশ দিয়ে পেমেন্ট করলে এক রকম ফী। আবার কার্ড দিয়ে পেমেন্ট করলে আরেক রকম। তাই অবশ্যই আপনি গেটওয়ে সিলেক্ট করার সময় ফী স্ট্রাকচার দেখে নিবেন।

প্রতিটি গেটওয়ে একটি নির্দিষ্ট সময়/এমাউন্ট পর পর আপনার টাকা তাদের একাউন্ট থেকে আপনার কানেক্টেড ব্যাংক একাউন্টে ট্রান্সফার করবে।

পেমেন্ট গেটওয়ে গুলার জন্য কিভাবে এপ্লাই করবো?

প্রথমেই আপনাকে বুঝতে হবে যে এটি একটি ফাইনানশিয়াল প্রতিষ্ঠান। তারমানে এটিকে ফেসবুক, ইন্সটাগ্রাম এর মতো মনে করলে হবে না। ফাইনানশিয়াল প্রতিষ্ঠান সবসময় ডকুমেন্ট কেন্দ্রিক হয়।  তাই আপনার কাছ থেকে তারা কিছু বেসিক ডকুমেন্ট চাইবে এবং তার উপর ভিত্তি করে তারা আপনাকে মার্চেন্ট একাউন্ট ওপেন করে দিবে।

  • আপনার একটি আপটুডেট ট্রেড লাইসেন্স থাকতে হবে।
  • একটি ওয়েবসাইট থাকতে হবে।
  • ওয়েবসাইট অবশ্যই গোছানো থাকতে হবে।
  • ওয়েবসাইটে প্রাইভেসি পলিসি, রিফান্ড পলিসি এবং টার্মস এন্ড কন্ডিশন পেজ থাকতে হবে।
  • এবাউট পেজ গোছানো থাকতে হবে
  • এবং ফাউন্ডার/রিপ্রেসেন্টেটিভ এর এনআইডি/পাসপোর্ট/ড্রাইভিং লাইসেন্স থাকতে হবে।

আপনাকে মনে রাখতে হবে, যেহেতু এটি একটি ফাইনানশিয়াল সলিউশন তাই তারা অধিকার রাখে আপনার পেমেন্ট সম্পর্কিত যেকোন অতিরিক্ত তথ্য চাইবার। এবং আপনি তাদের কোন টার্ম এবং কন্ডিশন ভেঙ্গে থাকলে তার আপনার একাউন্ট সাসপেন্ড করার অধিকার রাখে। তাদের টার্মস এবং কন্ডিশন গুলো দেখে নিতে পারেন তাদের ওয়েবসাইট থেকে।

আপনার যদি ট্রেড লাইসেন্স থেকে না থাকে তাহলে সুমুহু সম্ভাবনা আছে যে তারা আপনার এপ্লিকেশন গ্রহণ করবে না। তাই আপনার উচিত হবে আপনার বিজনেসের ট্রেড লাইসেন্স করে ফেলা। এটি আপনাকে অনেক ভাবেই সহায়তা করবে।

আপনারা অনেকেই হয়ত জানেন যে আমি একটি ভিডিও মার্কেটপ্লেস তৈরি করেছি, যেখানে আমি আমার পে ব্যবহার করেছি।

বাংলাদেশিদের জন্য দেশের বাইরের কিছু গেটওয়ে যেটা আপনাকে গ্লোবাল বিজনেস পরিচালনা করতে সহায়তা করবেঃ 

আপনি যদি গ্লোবাল মার্কেটে বিজনেস পরিচালনা করে থাকেন তাহলে সব চাইতে ভালো হয় আপনি গ্লোবাল কোন পেমেন্ট গেটওয়ে ব্যবহার করেন। মনে রাখতে হবে সে ক্ষেত্রে বাংলাদেশি কেউ কিন্তু বিকাশ, রকেট এর মতো সার্ভিস ব্যবহার করে পেমেন্ট করতে পারবে না। অপর দিকে গ্লোবাল ক্লায়েন্টরা সহজেই তাদের ভিসা, মাস্টারকার্ড, পেপাল ব্যবহার করে আপনাকে পেমেন্ট করতে পারবে। নিচে আমি কিছু ভালো পেমেন্ট গেটওয়ে এর ডিটেইল দিচ্ছি।

  • Fastspring
  • Paddle
  • 2Checkout
  • Stripe (Need foreign company registration)
  • Paypal (Need foreign company registration)

দেশের বাইরে কোম্পানি ফর্মেশন রিলেটেড কোন সহায়তা দরকার হলে আমার টিমের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন

আপনি যদি আমার ব্লগে প্রথমবার হয়ে থাকেন তাহলে আমার বিজনেস সিরিজের অন্যান্য কন্টেন্ট পড়তে পারেন। আমি আপনার জন্য স্টেপ বাই স্টেপ গুছিয়ে দিয়েছি।

 

Comments

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here