fbpx

পণ্যের মুল্য নির্ধারণ – ট্রিক্স ১

কখনো কি এমন হয়েছে?

আপনার ব্র্যান্ডের পরিচিতি বৃদ্ধি পাচ্ছে, বিজ্ঞাপনে আপনি প্রচুর খরচ করছেন কিন্তু তারপরেও আশানুরুপ ফলাফল এবং পর্যাপ্ত বিক্রি নিশ্চিত করতে পারছেন না? 

শুধু আপনার ক্ষেত্রে নয়, সবার ক্ষেত্রে কম-বেশি এমনটা হয়। 

সেক্ষেত্রে আমরা বেশির ভাগ সময় মনে করি, বিজ্ঞাপনটি আমাদের টার্গেট কাস্টমারের কাছে পৌছাচ্ছে না এবং এটাই বিক্রি না হবার অথবা বিক্রি না বাড়ার একমাত্র কারণ। 

এমনটা হতে পারে তবে বিক্রি না বাড়ার পেছনে আরও অনেক কারণ থাকে 

সঠিক অডিয়েন্সের বা কাস্টমারের কাছে রিচ হলেই যে অনেক বিক্রি হবে তা কিন্তু না। অনেক কারনেই বিক্রি কমতে পারে। 

যেমনঃ পর্যাপ্ত ফলোআপ না দেয়া। আমি বেশির ভাগ ক্ষেত্রে দেখেছি ফেইলর মার্কেটিং ক্যাম্পেইন গুলার একটি কমন বেপার হচ্ছে ফলোআপ প্লান না থাকা।  

“৮০% মানুষ যেকোন পণ্য দেখে ৫ বা তার অধিক বার সেই পণ্য সম্পর্কিত বিজ্ঞাপন অথবা অরগানিক কন্টেন্ট দেখার পর।” 

আবার ফলো আপ দেয়ার ক্ষেত্রে মিডিয়া বায়িং যেমন একটি সমাধান হতে পারে, আবার সোশ্যাল মিডিয়ার অরগানিক কন্টেন্ট ও ভাল মাধ্যম হতে পারে। 

যেমন রেগুলার সোশ্যাল মিডিয়াতে দেয়া আপনার পোস্ট অথবা স্টোরি। এই কন্টেন্টগুলো আপনার অডিয়েন্সকে মনে করিয়ে দিতে পারে আপনার পণ্য/সেবা অথবা ব্র্যান্ড এর কথা। 

আবার বর্তমান সময়ে মার্কেটিং এ ভাল করতে হলে কমিউনিটি তৈরির বিকল্প নেই। আবার কমিউনিটি তৈরি করতে হলে কন্টেন্ট তৈরি করতে হয়। আর কন্টেন্ট তৈরি করতে হলে দরকার হবে কন্টেন্ট আইডিয়া। 

আমাদের টিম মূলত কন্টেন্ট তৈরির জন্য যে কন্টেন্ট আইডিয়া লিস্ট ব্যাবহার করে থাকে তা আমি আপনাদের জন্য উন্মুক্ত করে দিয়েছি। যদিও এই লিস্টটি পেতে আপনাকে কিছুটা ইনভেস্ট করতে হবে, তবে তা আপনাদের জন্য যতটুকু সম্ভব কমিয়ে রাখার চেষ্টা করেছি।

লিস্টটি পেতে এখানে ক্লিক করুন

আসুন এখন পণ্যের মূল্য নির্ধারন এর ট্রিক্স নিয়ে আলোচনা করি।

পণ্যের মুল্য নির্ধারণ – ট্রিক্স ১

বিক্রি না বাড়ার আরও একটি বড় কারণ হচ্ছে সঠিক ভাবে প্রাইসিং ফরমেট তৈরি করতে না পারা। প্রাইসিং অনেক বড় একটি ফ্যাক্টর আপনার পণ্যের বিক্রি বাড়ানোর জন্য। 

আজকে আমরা আলোচনা করবো ডিকোয় প্রাইসিং (Decoy Pricing) নিয়েএটি মূলত একটি ফোর্সিং ফর্মুলা।

আমরা আমাদের পণ্য গুলোকে এমন ভাবে ভাগ করবো এবং এমন ভাবে প্রাইসিং সাজাবো যা কাস্টমারকে ফোর্স করবে আমাদের সেট করা ডিলটা পছন্দ করাতে।

উদাহরণ দিচ্ছিঃ 

উপরের ছবিটি যদি দেখে থাকেন তাহলে দেখবেন মিডিয়াম সাইজের পপকর্ন টি কেউ কিনতে চাইবে না। মানুষ ভাববে এটি কিনলে লস। আর ২৫ টাকা বাড়িয়ে লার্জটাই কিনি। বিক্রেতা কিন্তু অপেক্ষাকৃত বড়টাই বিক্রি করতে চাচ্ছে। মাঝে মিডিয়াম সাইজটিকে একটি এংকর হিসেবে ব্যবহার করেছে। 

এই ফর্মুলাটি মূলত সব ফাস্ট ফুড ব্যান্ডই ব্যবহার করে থাকে। বিশেষ করে তাদের প্রাইসিং স্ট্রাকচার আপনাকে ফোর্স করবে তাদের সেট মিল নিতে। 

প্রাইসিং ফর্মুলা নিয়ে আরও নতুন নতুন কন্টেন্ট আসছে 

আমাদের ফেসবুক গ্রুপে জয়েন করে না থাকলে এখানে ক্লিক করুন

আর সোশ্যাল মিডিয়া কন্টেন্ট আইডিয়া ৫০% কম খরচে পেতে এখানে ক্লিক করুন।

আর পরবর্তি ট্রিক্স গুলো পেতে কানেক্টেড থাকুন আমার লিঙ্কডীন চ্যানেলে

রিলেটেড পোস্ট: