fbpx

So You Can – যাতে আপনি

কন্টেন্ট ইস কিং? এই কথাটা আমরা সবসময় শুনে থাকি। কেউ হয়ত এসইও এর পয়েন্ট অফ ভিউ থেকে বলে থাকেন, কেউ হয়ত কনভার্শনের পয়েন্ট থেকে বলে থাকেন। তবে যে যেই পয়েন্ট অফ ভিউ থেকেই বলুক না কেন, কন্টেন্ট ইস কিং। এই কথাটা সত্যি। আর এই কিং কে ভিজিটর এবং এসইও ফ্রেন্ডলি করার জন্য স্কিল দরকার হয়। জানতে হয় কন্টেন্ট স্ট্রাকচার কেমন হওয়া উচিত। এক এক ধরনের কন্টেন্ট এর স্ট্রাকচার এক এক রকম হয়। যাতে আপনি সেখান থেকে সর্বোচ্চ সুবিধা পেতে পারেন।

আবার কন্টেন্ট বলতে কিন্তু শুধু ব্লগ পোষ্ট / ওয়েব সাইটের কন্টেন্টকেই বুঝায় না। ইমেইল কন্টেন্ট, ভিডিও কন্টেন্ট, অডিও কন্টেন্ট, ইমেইজ কন্টেন্ট ইত্যাদিও অন্তর্ভুক্ত। আর এই বিভিন্ন ধরণের কন্টেন্ট লিখার মুল পয়েন্ট গুলো যদি আপনি আইডেন্টিফাই করতে পারেন, তাহলে আপনি আপনার কন্টেন্ট থেকে সর্বোচ্চ রিটার্ন এনসিউর করতে পারবেন।

So you can (যাতে আপনি / যেন আপনি) এই কথাটি দিয়ে কি বুঝবেন?

so you can কে সহজে বাংলাতে কনভার্ট করলে তার অর্থ দাড়ায়, যাতে আপনি / যেন আপনি। আমি ইংরেজীটাকেই রেখেছি ব্লগ পোষ্টের টাইটেলে কারন আমরা মূলত গ্লোবাল মার্কেটকে টার্গেট করে কন্টেন্ট বানাই, আর যাতে আপনি সহজে বুঝতে পারেন। আমরা যে কারনেই কন্টেন্ট বানাই না কেন, দিনশেষে আসলে আমরা একটা কনভার্শন চাই। আমরা চাই আমাদের কল-টু-একশন বাটনের সর্বচ্চ সদ্ব্যবহার। আর একারনেই এই ব্লগ পোষ্টটা লিখা যেন আপনি এই ফরমুলাটি ব্যাবহার করে আপনার কন্টেন্ট কে কনভার্শন ফ্রেন্ডলি করতে পারেন।

নিচে আমি দুইটা উদাহরন দিচ্ছি, একটু খেয়াল করে পড়বেন

১#
“This SEO tool comes with lots of features. This tool has feature to find keyword difficulty and competitor’s backlink.”

২#
“This SEO tools comes with lots of features so you can fulfill your all SEO needs at once. This tool has features for keyword difficulty checking and competitors backlink analysis so you can choose the right keywords and build more quality backlinks.”

আপনি যদি মনযোগ দিয়ে পড়ে থাকেন তাহলে খেয়াল করবেন আমি সেইম কথাই লিখেছি। ১ নম্বরের লিখার ধরনটা আপনাকে টাচ করবেনা। কেননা সেখানে আপনি কিভাবে লাভবান হবেন সেটা সরাসরি লেখা নাই, আপনাকে বুঝে নিতে হবে। তবে মানুষ যখন পড়তে থাকে তখন সাইকোলজিকালি সে লেখার মধ্যেই ডুবে থাকে। তাই বুঝে নেয়ার বেপারগুলো তার মাথায় হুট করে আসেনা। তাই লেখার মাধ্যমে আপনার দেখিয়ে দিতে হবে সে কিভাবে বেনেফিটেড হতে পারে। আপনি যখন এটা সফল ভাবে করতে পারবেন তখন আপনার জন্য কনভার্সন ফ্রেন্ডলি কন্টেন্ট তৈরি করা সহজ হবে। কন্টেন্ট রিলেটেড আরো কিছু দরকারি টিপ্স পেতে এই পোষ্টটী পড়তে পারেন

আরো দুইটা উদাহরন দেইঃ
১#

আমি আমার এই ব্লগে মূলত এসইও এবং ইন্টারনেট মার্কেটিং নিয়ে লিখি। গত ৭ বছর ধরে আমি একটা ছোটখাট টিম লিড করছি এবং এই সময়ের মধ্যে আমি ৬০০ এর অধিক ক্লায়েন্ট নিয়ে কাজ করেছি।

২#

আমি আমার এই ব্লগে মুলত এসইও এবং ইন্টারনেট মার্কেটিং নিয়ে লিখি যাতে আমার প্রফেশনাল অভিজ্ঞতা আপনি আপনার কর্মক্ষেত্রে কাজে লাগাতে পারেন। গত ৭+ বছরে আমি ৬০০ এর অধিক ক্লায়েন্টের সাথে কাজ করেছি যার অভিজ্ঞতা আপনাদেরকেও এগিয়ে নিতে সাহায্য করবে

লিখার ধরনের সামান্য কিছু পরিবর্তন আপনার কনভার্শন রেটের উপর অনেক বড় প্রভাব ফেলতে পারে। তাই আপনি যে ধরনের কন্টেন্টই তৈরি করেন না কেন চেষ্টা করবেন যাতে সেখানে so you can টাইপের শব্দগুলোকে এড করা যায়। আমি কি করি তা কখনই আমার ভিজিটরের কাছে গুরুত্ব পুর্ন নয়, বরংচ আমি কিভাবে তাকে সাহায্য করতে পারি, এই টোনটা গুরুত্ব পুর্ন।

By the way, you can join my facebook group so you can learn lots more marketing and growth hacking tricks for FREE.