fbpx

একজন অনলাইন উদ্যোক্তার জীবন যেমন

একজন অনলাইন উদ্যোক্তা ৯ টা ৫ টা অফিসে নিজেকে অভ্যস্ত করতে না চাইলেও সকাল ৯ টা থেকে রাত ৪ টা পর্যন্ত কাজ করতে বিরক্ত হয় না। চাইলেই কাজ না করে ঘোরাঘুরি করার সুযোগ থাকলেও বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই দেখা যায় ছুটির দিনেও তারা কাজ করছেন এমন কি ঈদের দিনেও। আমিও এর ব্যাতিক্রম নই, এবং এটাই বাস্তবতা। তাই যারা ভাবেন অনলাইনে এসে কিছু একাউন্ট খুললেই গড়গড় করে টাকা আসতে থাকবে তারা ভুলের রাজ্যে বাস করছেন।

অনলাইনে দ্রুত বড়লোক হওয়ার অনেক স্কিম কিনতে পাওয়া যায়, কিন্তু সেই স্কিম থেকে শুধু স্কিমের মালিক কেই বড়লোক হতে দেখেছি, যারা স্কিম কিনেছেন তাদেরকে এখনো দেখা হয় নি। তাই আবারো লিখছি যারা ভেবে থাকেন অনলাইনে এসে কিছু একাউন্ট খুললেই গড়গড় করে টাকা বের হতে থাকবে তারা ভুলের রাজ্যে বসবাস করছেন।

একজন অনলাইন উদ্যোক্তা খুব সহজেই নিজের পছন্দের বিষয় নিয়ে কাজ করতে পারেন, এটা হচ্ছে একজন অনলাইন উদ্যোক্তার সবচেয়ে বড় সুবিধা। উনি তার পছন্দ মত সময় নির্ধারন করতে পারেন। কখনো বেশি কখনো কম, যেমন খুশি তেমন ভাবে কাজের শিডিউল তৈরি করা যায়। উদাহরন স্বরূপ আমি আজ সারাদিন বাসার বাইরে ছিলাম, কিন্তু আমি খুব অনায়াসেই রাত জেগে কিছু দরকারি কাজ শেষ করে নিচ্ছি। একই ভাবে একজন অনলাইন উদ্যোক্তা যেকোন যায়গা থেকেই তার ব্যবসা চালিয়ে যেতে পারে।

কিন্তু এতেও এত খুশি হবার কিছু নেই, কারন এতটা সুযোগ সবার জন্য নয়। ক্যারিয়ারের শুরুর দিকের দৃশ্য ঠিক উল্টো। তখন সব সখ আল্লাদ, চাওয়া পাওয়া বাদ দিয়ে কাজ করে যেতে হয়। শুধু কাজ করলেই হয় না, অনেক কাজে একসাথে ব্যাস্ত থাকতে হয়। গড়ে তুলতে হয় নেটওয়ার্ক, ব্যাস্ত থাকতে হয় নতুন নতুন এক্সপেরিমেন্টে এবং করতে হয় অনেক বেশি পড়াশুনা। সম্ভবত একজন অনলাইন উদ্যোক্তা এত মনযোগ দিয়ে তার পাঠ্যবই পড়েননি, যতটা পড়েন তার ব্যবসা সম্পর্কিত ব্লগ পোষ্ট অথবা কোন নিশ (niche) এক্সপার্ট এর লিখা পিডিএফ বই। মুভির চাইতেও দরকারি ইউটিউব ভিডিও বেশি গুরুত্ব পায় তার কাছে। আর এসব কাজ সঠিক ভাবে করতে পারলেই কেবল সে নিজেকে এমন যায়গাতে নিয়ে যেতে পারে, যেখান থেকে তার জীবনকে সুন্দর ভাবে উপভোগ করা যায়।

একজন অনলাইন উদ্যোক্তা সবসময় মানুষকে সাহায্য করতে ভালবাসেন, কমিউনিটি তৈরি এবং কমিউনিটি এর উন্নতির জন্য কাজ করে থাকেন। আর এই স্বভাবের কারনেই আজ ওয়েব এক তথ্য ভান্ডারে রুপান্তরিত হয়েছে। সব ধরনের তথ্য এবং সলিউশনই পাওয়া যায় অনলাইনে। শুধু তাই নয়, এরা অনেক বেশি কো-অপারেটিভ এবং তারা বিভিন্ন সামাজিক কর্মক্ষেত্রে নিজেদের সম্পৃক্ত করতে ভালবাসেন। তবে এর মধ্যে কিছু ব্যতিক্রমও পেতে পারেন তবে ব্যতিক্রম কখনোই উদাহরন হতে পারে না।

Life of an Online Entrepreneur

 

একজন অনলাইন উদ্যোক্তা নিজেকে কখনো রুটিন ওয়ার্কের মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখতে পছন্দ করেন না, সবসময় নতুন কিছু করতে ভালবাসেন, নতুন কিছু আবিস্কারের নেশা তার মধ্যে চেপে থাকে, আর যার ফলস্বরুপ প্রতিনিয়ত আমরা নতুন নতুন স্টার্টআপ পাচ্ছি, কেউ হয়তো নতুন টুলস তৈরি করছেন, কেউ হয়তো নতুন ধাচের ওয়েবসাইট তৈরিতে ব্যাস্ত আবার কেউ দিচ্ছেন নতুন ধাচের কোন সার্ভিস।

বেশির ভাগ অনলাইন উদ্যোগ বিশ্বব্যাপি হওয়ার ফলে একজন অনলাইন উদ্যোক্তাকে হতে হয় একটু বেশি পরিশ্রমী, কমিউনিকেটিভ এবং ক্রিয়েটিভ। তাকে পুরো বিশ্বের সাথে কম্পিটিশন করে টিকে থাকতে হয়। তাই তার সম্ভাবনা যতটাই বিশাল ততটাই বিশাল তার প্রতিযোগিতা। তাই আবারো বলছি এটা ভাবার কোন অবকাশ নেই যে এখানে চাইলেই খুব সহজে টাকা কামানো সম্ভব। টাকা কামাতে হলে আপনার প্রতিযোগীদের চেয়েআপনাকে এগিয়ে থাকতে হবে, আর বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই আপনার মুল প্রতিযোগী হবে আমেরিকা, ইংল্যান্ড এর মত উন্নত বিশ্বের প্রতিষ্ঠান গুলো।

তবে বাংলাদেশের অনেক পেশার চেয়ে অনলাইন উদ্যোক্তারা আর্থিক ভাবে বেশ সচ্ছল যা তাদের পারিবারিক জীবনেও সুখে থাকতে সাহায্য করে। তবে বাংলাদেশের বেশিরভাগ মানুষ এখনো এই সেক্টর সম্পর্কে তেমন কিছু জানেন না। যেহেতু ঘরে বসেই সব কাজ সম্পন্ন করা যায়, তাই অনেকে একে বাকা চোখে দেখেন অথবা ধরে নেন এই সেক্টরে ক্যারিয়ার গড়তে তেমন মেধার দরকার নেই। আমার মাঝে মাঝে তাদের মেধা নিয়েই প্রশ্ন জাগে যারা একটা ক্ষেত্রের তেমন কিছু না জেনেই এমন সিদ্ধান্তে পৌছে যান। যারা কোন কিছু না জেনেশুনেই এমন সিদ্ধান্তে পৌছে যান তাদের জন্যঃ অনলাইন প্রফেশনালদের নিয়ে কিছু কথা

অনলাইন উদ্যোক্তারা শুধু নিজেদের ক্যারিয়ার গড়েই সিমাবদ্ধ থাকেনা, গড়ে তুলেন নিজেদের কমিউনিটি। যার কারনে প্রতিদিন নতুন নতুন কর্ম ক্ষেত্র তৈরি হচ্ছে। বাড়ছে বৈদেশিক মুদ্রা। তাই আমি একজন অনলাইন উদ্যোক্তা হতে পেরে নিজেকে গর্বিত মনে করি।

এই লিখার মূল উদ্যেশ্য ছিল, যারা অনলাইনে ক্যারিয়ার গড়ার নেশাতে কোন কিছু জেনে, না জেনেই, নিজের কেপাবিলিটি এনালাইসিস না করেই শর্টকাট খুজছেন, নিজের টাকা এবং সময় অপচয় করছেন, সাথে নস্ট করছেন রেপিউটিশন তাদের জন্য, যেনো আমাদের চলার পথ সম্পর্কে বাস্তব ধারনা পান । আপনার মন্তব্য কমেন্ট এর মাধ্যমে জানাতে অনুরোধ করছি।