fbpx

টারগেটেড ট্রাফিক পাওয়ার সহজ উপায় (পর্ব ২)

আপনি কি ইকমার্স ব্যবসা করছেন?

অথবা ফ্রিল্যান্সিং বা সার্ভিস প্রোভাইডিং বিজনেসের সাথে সম্পৃক্ত?

যদি হয়ে থাকেন তাহলে এই পোস্টটি আপনাকে অবশ্যই সাহায্য করবে। তবে তার জন্য আপনার পুরো পোস্টটি পড়তে হবে।

গত পোস্টে আমি লিখেছিলাম কিভাবে ইউজার জেনারেটেড কন্টেট তৈরি করবেন। আজ আমি আরেকটি ইফেক্টিভ টুল নিয়ে লিখবো। আপনি হয়ত এই টুল ব্যাবহার করে লিড জেনারেট করেননি, কিন্তু স্মার্ট মার্কেটারগন ইতি মধ্যেই এটার সুবিধা আদায় করছেন। আমি ফেসবুক লাইভের কথা বলছি।

ফেসবুক লাইভ ভিডিও

লাইভ ভিডিও কন্সপেটটা সব ক্ষেত্রেই অনেকটা একই রকম কিন্তু যেহেতু বাংলাদেশের অডিয়েন্স ফেসবুকমুখী তাই আমি শুধু ফেসবুক নিয়েই লিখবো। তবে একই স্ট্রাট্যাজি ইন্সটাগ্রাম, পেরিস্কোপ সহ অন্যান্য চ্যানেলেও কাজ করবে।

আমরা সবাই হয়তো কম বেশি ফেসবুক লাইভ ভিডিও দেখেছি। অথবা লাইভ সেশন করেছিও।

প্রথমেই লিখছি 10 Minute School এর কথা। তাদের লাইভ ভিডিওতে আপনি প্রায় একটা কমন ব্যাপার দেখবেন।

“তোমরা কে কোথা থেকে এই লাইভ ভিডিও দেখছো এখনই কমেন্ট করে জানাও” অথবা “তোমরা কে কোন ইন্সটিটিউটে পড়ছো তা কমেন্ট করে জানাও”।

প্রথমেই জেনে নেই, এটা কেন বলা হয়?

  • ভিডিও এর এঙ্গেজমেন্ট (engagement) বাড়াতে। একজন প্রফেশনাল যখন লাইভ সেশনে আসেন, স্বভাবসুলভ ভাবেই তিনি চাবেন যত বেশি মানুষের কাছে পৌঁছানো যায়। আর ফেসবুক এর এলগরিদম যেহেতু এঙ্গেজমেন্ট নির্ভর তাইবেশি এঙ্গেজমেন্ট মানে বেশি মানুষের নিউজফিডে শো হওয়া, তার মানে বেশি রিচ। হুররে……
  • কে কোন জেলা / ইন্সটিটিউট থেকে এই তথ্যটাও গুরুত্বপুর্ন। এ তথ্য ভবিষ্যতে কন্টেন্ট প্লান করতে সাহায্য করে। কেননা আমি যত আমার অডিয়েন্স সম্পর্কে জানবো, আমার ভাল করার সম্ভাবনা তত বেড়ে যাবে।  এছাড়াও মানুষের এঙ্গেজমেন্ট রেট থেকেও কন্টেন্টের মান বোঝা যায়।

টিপ্স ১ঃ

এঙ্গেজমেন্টের জন্য এমন কোন প্রশ্ন করতে হবে যার উত্তর অনেক সহজ এবং ছোট। যা মুলত এক দুই শব্দেই দেয়া যায়। অন্যথায় এঙ্গেজমেন্ট কমে যাবে।

টিপ্স ২ঃ

লাইভ ভিডিও শুরু করেই মুল আলোচনাতে না যাওয়া ভাল। কিছুটা সময় নেয়া উচিত। যাতে বেশি সংখ্যক মানুষকে লাইভে পাওয়া যায়। উদাহরন স্বরূপ আপনি সোলায়মান সুখন এর ভিডিও গুলো দেখতে পারেন।

টিপ্স ৩ঃ

একটা হাসি দিয়ে লাইভ সেশন শুরু করুন। আপনার এটিটিউট আপনার ব্রান্ডকে রিপ্রেসেন্ট করবে। এছাড়াও হাসি দিয়ে শুরু করলে একটা পসিটিভ ফিলিং পাওয়া যায়।

এবার আসি লাইভ ভিডিও থেকে আপনি কিভাবে ট্রাফিক জেনারেট করবেন?

বিজনেসের ধরন যাই হোক না কেন, আপনার লক্ষ্য হচ্ছে কাস্টমারের কাছে পৌছানো। আর ফেসবুক যে আপনাকে আপনার কাস্টমারের কাছে পৌছাতে সাহায্য করবে তা আর আমার নতুন করে লিখার কিছু নেই।ফেসবুক নিউজ ফিড এখন অনেকটাই ভিডিওময়। এছাড়াও ভিডিও এবং ইমেজ কন্টেন্টের এঙ্গেজমেন্ট বেশি হয়ে থাকে।

তাই শুরুতেই একটা প্লান করতে হবে কিভাবে ফেসবুক লাইভ সেশনকে কাজে লাগিয়ে আমার ব্রান্ড ভিসিবিলিটি বাড়াতে পারি।

উদাহরন স্বরূপঃ আমি যদি ইকমার্স ব্যাবসার সাথে সম্পৃক্ত থাকি তাহলে আমি আমার টপ ২/৩ টা পন্য নিয়ে লাইভে আসতে পারি। তার আগেই আমাদের প্লান করতে হবে আমরা লাইভে এসে কি ভ্যালু এড করবো। ব্যবসার সব প্লান হতে হবে কাস্টমারকে ফোকাস করে। তাই কাস্টমারকে আমি কি দিচ্ছি সে সম্পর্কে পরিষ্কার ধারনা থাকা চাই।

তাই আগে থেকেই একটা প্লান করতে হবে আমি কি দিতে যাচ্ছি।

পূর্ব প্রস্তুতি

যেহেতু আমি আমার লাইভ সেশন থেকে প্রফেশনাল এডভানটেজ নিতে চাচ্ছি, তাই আমাকে প্রস্তুতি নিতে হবে। চলে আসলাম আর বলে ফেললাম স্টাইল ফলো না করাই ভাল।

আপনি কি বলতে যাচ্ছেন – একটা ড্রাফট করুন। সিকুয়েন্স ফলো করুন – কোন বিষয়ের পর কোন বিষয় বলবেন। মোস্ট ইম্পরটেন্ট পার্টটি প্রথমে বলতে হবে। তাতে আপনার অডিয়েন্স ধরে রাখা সহজ হবে।

আগে থেকে জানিয়ে দেয়া

লাইভ সেশন সম্পর্কে সম্ভাব্য অডিয়েন্সকে আগে থেকেই জানিয়ে রাখতে হবে। এতে অডিয়েন্সের সংখ্যা বেড়ে যাবে। আগে থেকে জানানোর জন্য আপনি কি করতে পারেন?
ফেসবুকে পোষ্ট করে জানাতে পারেন। একাধিক বার পোষ্ট করলে ফলাফল ভাল হবে।

ধরুন আমি আগামি তিন দিন পর ফেসবুক লাইভে আসবো। তাহলে আজ একটা পোষ্ট হতে পারে এমনঃ  আমি (এত) তারিখে (এতটার) সময় আমি ফেসবুক লাইভে আসছি। কথা বলবো (এই বিষয়ের) উপর।

সেশনের আগের রাতে একটা রিমাইন্ডার দেয়া যেতে পারে। আর মাত্র (এত) ঘন্টা বাকি। আমি এক্সাইটেড আপনাদের সাথে ((এই বিষয়ের) উপর কথা বলার জন্য। আপনি থাকছেন তো। (আরো বিস্তারিত ভাবে লিখতে পারেন)।

সেশন শুরু হওয়ার ৩০ মিনিট আগে ফাইনাল রিমাইন্ডার দিয়ে পোষ্ট করতে পারেন।

এছাড়াও একই ফরমুলা এপ্লাই করে ইমেইল ক্যাম্পেইন চালু করতে পারেন।

এছাড়াও আপনার ব্লগের ল্যান্ডিং পেইজ অথবা উইজেটে লাইভ সেশনের টাইমটা হাইলাইট করে রাখা যেতে পারে। এমনকি এভারগ্রিন কন্টেন্ট যা নিয়মিত ট্রাফিক পায়, সেখানেও এড করে দেয়া যায়।

আবার আমার মত ইভেন্ট পেজ খুলতে পারেন আপনার সাইটে। এখান থেকে আপনার ভিজিটর আপনার আপকামিং ইভেন্ট সম্পর্কে জানতে পারবে।

আমার আপকামিং ইভেন্ট সম্পর্কে জানতে এখানে চোখ বুলাতে পারেন

সামারাইজ করা

আমি অধিকাংশ সফল ভিডিও মার্কেটারদেরকে দেখেছি তারা ভিডিও শেষ করার পুর্বে সেশনটির একটা সামারাইজেশন করে আর নেক্সট ভিডিও / অফারের কথা বলে থাকে। এতে যারা শূরু থেকে থাকতে পারে নাই তারা উপকৃত হয়।

এছাড়াও, আপনার প্রতিটা লাইভ সেশনের পর একটা এনাউন্সমেন্ট থাকা উচিত। কেননা যারা আপনার লাইভ সেশন শেষ পর্যন্ত দেখেছেন তারা আপনার ভিডিও পছন্দ করেছেন। অর্থাৎ সে আপনার টারগেটেড ট্রাফিক। এখন আপনি আপনার এনাউন্সমেন্টটি ঠিক ভাবে করতে পারলেই কনভার্শন হবার সুযোগ রয়েছে।

আমি সেলিং এর উপর একটা ফ্রী ওয়ার্কশপ করতে যাচ্ছি। বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

আপনার লাইভ ভিডিওয়ের ডেস্ক্রিপশন, লাইভ সেশনের টাইম এই ব্যাপাগুলোও গুরুত্বপুর্ন। লাইভ সেশনের সময় আপনার ইন্টারনেট কানেকশন ভাল থাকা জরুরি। অন্যথায় আপনি অডিয়েন্স হারাতে পারেন।

ফেসবুক লাইভ সেশন কে কাজে লাগিয়ে আপনি যেমন গান শুনাতে পারেন একই ভাবে একটু প্লান মাফিক কাজ করলে সেলও জেনারেট করতে পারবেন। আর কিভাবে করবেন তা আমি যথেষ্ট বিস্তারিত দেখিয়েছি। আশা করি কাজে লাগবে। আমার ফ্রী ওয়ার্কশপসমুহে অংশগ্রহন করার জন্য আমার ইমেইল লিস্টে সাবস্ক্রাইব করে রাখুন।

আর ফেসবুক গ্রুপে জয়েন না করে থাকলে এখনই করে নিতে পারেন। ধন্যবাদ 🙂