fbpx

Grow With Nahid এর ইতিকথা

আমি আমার ব্লগ ইউআরএল পরিবর্তন করেছি, অনেকেই হয়ত নোটিশ করেছেন। কেন করেছি? শুধু ভাল লাগে থেকে করেছি ব্যাপারটা কিন্তু এমন নয়। এর পিছনে রয়েছে কিছু মার্কেটিং সম্পর্কিত কারন। এটাই লিখবো এই ব্লগে। জানতে হলে শেষ পর্যন্ত পড়তে হবে।

প্রথমেই বলি, আমি কমিউনিটিতে কন্ট্রিবিউট করার জন্য অনেক আগেই বাংলাতে ব্লগিং শুরু করেছিলাম। বাংলাতে লিখাটা আসলে আমার কাছে ইংরেজীতে লেখারচেয়েও কঠিন মনে হয়। যেহেতু ক্লায়েন্ট বিদেশি এবং ভাল সব রিসোর্স ইংরেজীতে তাই মার্কেটিং টার্মগুলো ইংরেজীতে বুঝানো অপেক্ষাকৃত সহজ। তবে পরবর্তিতে মনে হল বাংলাদেশি কমিউনিটিতে কন্ট্রিবিউট করার জন্য আসলে বাংলা ভাষাই ভাল। কেননা এতে বেশি সংখ্যক মানুষের কাছে পৌছানো যায়।

লিখা শুরু করলাম। ইন্ডাস্ট্রির বড় ভাইয়েরা এপ্রিশিয়েট করলেন। কিন্তু কিছুদিনের মধ্যেই উৎসাহ হারিয়ে ফেললাম যখন দেখলাম আমার লেখা কন্টেন্টগুলো হুবুহু অন্যান্য ব্লগে পোষ্ট হচ্ছে। প্রথমে ভাবলাম হয়ত কোথাও না কোথাও ক্রেডিট দেয়া থাকবে। কিন্তু না। যিনি পোষ্ট করেছেন তিনি তার নিজের নামেই করেছেন। শুধু তাই নয়, কেউ যখন কমেন্টে তাকে এপ্রিশিয়েট করছেন সে তা হাসিমুখে গ্রহন করছেন এবং রিপ্লাই দিচ্ছেন। এইগুলো দেখে লেখার ইচ্ছাটাই মরে গেল। তারপর প্রায় ২ বছর বাংলা ব্লগিং থেকে দূরে ছিলাম। মাঝে মাঝে ৫-৬ মাসে হয়ত একটা ছোটখাট পোস্ট লিখতাম মন চাইলে না চাইলে নাই।

আবার কেন শুরু করলাম

এক কথায় বললে বলবো বাংলা কন্টেন্ট বৃদ্ধির জন্য। নলেজ শেয়ার আমি ইংরেজীতে লিখেও করতে পারতাম। মনে হল আমরা একটা কমিউনিটি বিল্ড করছি। নিজেদের ভাষার রিসোর্স থাকবে না, এটা কি করে সম্ভব। আমি যখন HR সম্পর্কিত কোন সমস্যাতে পরি, তখন আমাকে অনলাইনে অন্যান্য দেশের HR ভিডিওগুলো দেখতে হয়, ব্লগ পোষ্ট পড়তে হয়। সেগুলো দেখে উপকার পাওয়া যায় তবে একটা সমস্যা হলো ওদের প্রফেশনাল আর আমাদের প্রফেশনালের সাইকোলজি একরকম না। ফলে চাইলেও সরাসরি কাজে লাগানো যাবে এমন কোন রিসোর্স পাইনা। তখনই একটা আক্ষেপ কাজ করলো, কেন আমাদের দেশের টপ ক্লাস বিজনেস প্রফেশনালগন তার নলেজ শেয়ার করেন না! সেই আক্ষেপ থেকেই বাংলা কন্টেন্ট তৈরির সিদ্ধান্ত নিয়ে নিলাম। লাখ লাখ মানুষকে তথ্য দিয়ে সাহায্য করতে না পারলেও কমপক্ষে কয়েক হাজার অনলাইন প্রফেশনালকে সাহায্য করতে পারবো এটুকু কনফিডেন্ট আছে।

#GrowWithNahid হ্যাশট্যাগ

আমি যেহেতু একজন অনলাইন মার্কেটার এবং ৬০০ এর অধিক ক্লায়েন্টকে সাপোর্ট দেয়ার অভিজ্ঞতা আছে তাই মার্কেটিং এর কিছু বেপারে ভালই দক্ষতা আছে। যেহেতু আমি মানুষকে সাহায্য করতে চাচ্ছিলাম তাই এমন একটা হ্যাশট্যাগ ব্যাবহার করতে চাচ্ছিলাম যা ইন্ডিরেক্টলি ভিজিটরদের জন্য একটা কল-টু-একশন হিসেবে কাজ করে। তাদের মধ্যে যাতে ফিলিংটা কাজ করে যে এই কন্টেন্টটা তার জন্যই। আর কন্টেন্টতো প্রকৃত অর্থেও ভিজিটরের জন্যই হয়।

একটা সময় দেখলাম কমিউনিটির সিনিয়র অনেক প্রফেশনাল আমার হ্যাশট্যাগের ব্যাবহারটা নোটিস করেছেন এবং অনেকেই সরাসরি এপ্রিশিয়েট করেছেন। আমি জানি যারা নতুন তাদেরকে কিছু দিলেই তারা খুশি হয়ে যাবে, তাই আমি আসলে তাদের ফিডব্যাক নিয়ে তেমন একটা ভাবিনি। আমার প্লানিং ছিল যারা এই ইন্ডাস্ট্রিতে ইতোমধ্যেই ন্যুনতম ৩-৪ বছর ধরে কাজ করছেন তাদের ফিডব্যাক পাওয়া। কারন তাদের চিন্তা ভাবনা নতুনদের চাইতে অনেক পরিণত। আর যখন আমি বেশির ভাগ পজিটিভ ফিডব্যাক অভিজ্ঞদের থেকেই পেলাম, তা আমাকে আত্মবিশ্বাসী করেছে।

GroWithNahid ফেসবুক গ্রুপ

আমি আসলে শুধু কন্টেন্ট শেয়ারিং এর মাধ্যমেই আমার কন্ট্রিবিউশনকে সীমাবদ্ধ রাখতে চাচ্ছি না। ফ্রী রিসোর্স তৈরি করতে চাচ্ছি। তাই আমার একটা প্লাটফর্ম দরকার যেখানে আমি সহজেই আমার ফলোয়ারদের ফ্রী রিসোর্সগুলো দিতে পারি। যে গ্রুপগুলোতে আমি নিয়মিত কন্ট্রিবিউট করি, সেই গ্রুপগুলো অনেকটা স্পেসিফিক – হয় এসইও না হয় ইন্টারনেট মার্কেটিং নিয়ে। আমি যেহেতু ভিন্ন বেশ কিছু বিষয়ে রিসোর্স শেয়ার করবো তাই আমার একটা পার্সনালাইজড গ্রুপ দরকার ছিল। আর তাই একই নাম ব্যাবহার করে ফেসবুকে নতুন গ্রুপ খোলা।

এবার আসি কেন আমি আসলে ডোমেইন পরিবর্তন করলাম

১) আমি যেহেতু সব যায়গাতেই Grow With Nahid টার্মটা ব্যাবহার করছি তাই একটা এক্সপেরিমেন্ট করার জন্য একই নামে একটা ফেসবুক পেইজ খুলেছি। যেখানে প্রোফাইল পিকচার এবং কভার ফটো কোনটাতেই আমার কোন ছবি নেই, আমার ওয়েব এড্রেস নেই।  আমি আমার কোন কন্টেন্টে সেই পেইজের লিঙ্ক দেইনি। তারমানে শুধু পেইজের নাম থেকেই কিছুটা অনুমান করা যাবে যে এই পেইজ টা হয়ত আমার।  তারপরেও প্রতিদিনই আমি সেখানে নতুন লাইক পাই। এই কয়েকদিনে লাইক পেয়েছি প্রায় ৫৬।

Grow With Nahid

এ ডাটা থেকে সহজেই অনুমান করা যাচ্ছে, মানুষ এই টার্মটা দিয়ে সার্চ দিচ্ছে। তারা যদি এই টার্মটা দিয়ে ফেসবুকে সার্চ দিতে পারে, তাহলে গুগলে কেন নয়? তাই কেউ যাতে আমার অডিয়েন্সকে সহজে মিসলিড করতে না পারে তার জন্য একটা প্রস্তুতি নেয়া দরকার ছিল।

২) যেহেতু আমি বাংলা ব্লগিংটাকে কন্টিনিউ করবো তারমানে নতুন নতুন ফাংশনালিটি এড করার দরকার হতে পারে। ধরেন একটা ফোরাম তৈরি করলাম। তখন একটা সাবডোমেইন ব্যাবহারের দরকারও হতে পারে। যেহেতু আমার আগের ব্লগটাই (bn.nahidhasan.com) ছিল সাবডোমেইনে তাই ওটা নিয়ে আর মুভ করতে চাইনি। এখন যেহেতু রুট ডোমেইনেই আছি, তাই এখন সাবডোমেইন ক্রিয়েট করলেও অনেক বেশি ব্রান্ডএবল হবে।

৩) আমার দুই ব্লগের টার্গেট কাষ্টমার এবং অবজেক্টিভ দুই রকম। তাই দুইটাকে আলাদা রাখলে আমার কোন সমস্যা হচ্ছে না।

৪) এছাড়াও একজন প্রফেশনাল হিসেবে কাষ্টমারের ফিডব্যাকের গুরুত্ব আমি জানি। ব্লগার হিসেবেও জানি ভিজিটরের গুরুত্ব। তাই আমি একটা সার্ভে করি, যেখানে ৯৭% ভিজিটর GrowWIthNahid এর পক্ষে ভোট দিয়েছিলেন।

উপরের এই সুবিধাগুলোর কথা মাথায় রেখেই আসলে রিডিরেক্ট করা। যদি মার্কেটিং দৃষ্টিকোন থেকে সারমর্ম টানি তা হবে অনেকটা এমনঃ

  • মিসলিডের পসিবলিটি কমানো
  • ব্রান্ডএবিলিটি
  • ডোমেইন নেইম থেকেই ধারনা পাওয়া ভিজিটর কিভাবে বেনেফিটেড হচ্ছে।
  • ভিজিটরের মতামতের মূল্য দেওয়া

আপনাদের নিজেদের নতুন প্রোডাক্ট, সার্ভিস ডেভেলপমেন্টের সময় উপরের আলোচনা গুলা আপনাকে ইন্ডিরেক্টলি সাহায্য করবে।

আমার ইউটিউব ভিডিওগুলা দেখতে আমার চ্যানেল থেকে ঘুরে আসতে পারেন।

আর এই ব্লগ সম্পর্কে আপনাদের ফিডব্যাক যানাতে কমেন্ট করতে পারেন, তা আমাকে মোটিভেটেড করবে।